কপি – পেস্ট সন্ত্রাস !

কপি -পেস্ট সন্ত্রাস !

 

 

কেউ দেখে শেখে , কেউ ঠেকে শেখে । তবে এই দেখে শেখার মধ্যে কিন্তু মিশলেও মিশে যেতে পারে বহু ভেজাল । যে কারণে কোনও শিশুর বেড়ে ওঠার ক্ষেত্রে এতবার আলোচিত হয় পরিবেশ এবং পারিপার্শ্বিকের প্রসঙ্গ । আদতে আমরা প্রত্যেকেই নিয়ত অনুকরণশীল । আয়না দেখে অথবা আয়নায় দেখে দেখেই আমাদের যত লাগাতর বারফাত্তাই । চিন্তাবিদেরা অবশ্য একেই ডাকেন হাতে -কলমে শিক্ষা বলে  ।

ঠিক যেরকম হাতেনাতে শিক্ষালাভ করছে জঙ্গিরা । বিভিন্ন পাশ্চাত্য সিনেমায় হিংসা এবং যুদ্ধের দৃশ্যসমূহ এতোটাই সাবলীল এবং বিশ্বাসযোগ্য যে তা দেখে সত্যি সত্যিই শেখবার রয়েছে আতঙ্কের কারবারিদের । ক্যামেরা আর কম্পিউটারের কারিকুরিতে যেসব দৃশ্য দেখে আমরা পরিচালকের কল্পনা এবং বাস্তববোধের অকুণ্ঠ তারিফ করি মুগ্ধভাবে , তাই -ই হুবহু কন্ট্রোল সি – কন্ট্রোল ভি মেরে যদি কেউ প্রয়োগ করে ফেলে বাস্তবে তবে তা পরিণত হয় খবরের কাগজের হেডলাইন হওয়ার মতো বড়সড় সন্ত্রাসকাণ্ড তে  !

ভাবছেন বাড়িয়ে বলছি ? আজ্ঞে না মশাই — এ কেবল কষ্ট কল্পিত যুক্তি প্রয়োগ নয় , বাস্তব বলছে যেভাবে ঝাড়খণ্ডের মাওবাদীরা মৃতদেহের মধ্যে বিস্ফোরক ভরে দিয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর জওয়ানদের উড়িয়ে দেওয়ার ছক কষে ফেলেছে,  তা যেন একেবারে হুবহু নকল অস্কার পাওয়া হলিউডই সিনেমা ‘ হার্ট লকার ‘ -এর ।ভাবছেন যোগাযোগ কাকতালীয় ? মোটেই তা নয় । তাহলে জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ শিবিরে হানা দিয়ে কিভাবে মেলে বিভিন্ন যুদ্ধবাজ ইংরিজি সিনেমার ডি ভি ডি ?  যারা বন্দুক – মাইন নিয়ে সবসময় ছক কষছে কিভাবে সব তছনছ করবে , তারা স্রেফ ‘ বিনোদনের জন্য ‘ কম্পিউটারে চালাবে বিশেষ বিশেষ অ্যাকশন সিন — এ কথা কি বিশ্বাস যোগ্য ? শিশু -কিশোর -যুবা সহ সাধারন মানুষের মনে মারকুটে ভাব ভরে দিতে কম্পিউটার গেমসের ব্যবহার আর গোপন নেই । এবার সন্ত্রাসবাদীদের যুদ্ধ তালিমে সিনেমা – ভার্চুয়াল প্রশিক্ষণের জবাব নেই !

Advertisements